কাটা ঘায়ে নুনের ছিটা

কাটা ঘায়ে নুনের ছিটা

ঘরে ফিরেই করিম সাহেব উত্তেজিত ভঙ্গিতে স্ত্রীকে খুঁজতে শুরু করলেন। স্ত্রীকে দেখেই বলতে শুরু করলেন—
করিম সাহেব: কাটা ঘায়ে নুনের ছিটা দেওয়ার স্বভাবটা তোমার বাপের এখনও যায়নি, তাই না?
স্ত্রী: কেন, কী হলো আবার? এত বছরেও কি জামাই-শ্বশুরে মিল হলো না তোমাদের! কার কাটা ঘায়ে আবার নুনের ছিটা দিল আমার বাবা?
করিম সাহেব: আর কাকে দিব? আমাকেই দিছে।
স্ত্রী: কি সব বলো। আমার বাবা তোমাকে কি এমন বলেছেন যে তোমার কাটা ঘায়ে নুনের ছিটা লাগলো।
করিম সাহেব: আর বলো না। আজ দেখা হতেই ফের জিজ্ঞেস করল- আমার মেয়েকে বিয়ে করে তুমি সুখি তো?

****

আরও পড়ুন: বাংলা কৌতুক : পরীক্ষায় ১০০ পাওয়ার উপায়

শুরু করার আগে

অফিস থেকে বাড়ি ফিরে স্বামী বলল, ‘শুরু করার আগে ভাতটা দাও, খেয়ে নিই।’
স্ত্রী ভাত বেড়ে দিল। ভাত খেয়ে স্বামী ড্রয়িংরুমের সোফায় বসতে বসতে বলল, ‘শুরু করার আগে এক গ্লাস পানি দাও…বড্ড তেষ্টা পেয়েছে।’
স্ত্রী পানি দিয়ে গেল।
পানি খেতে খেতে স্বামী বিছানায় গিয়ে শুয়ে পড়ল। তারপর বলল, ‘শুরু করার আগে এক কাপ চা দাও না আমাকে।’
এইবার স্ত্রী গেল খেপে, ‘অ্যাই, পেয়েছ কী তুমি আমাকে, আমি তোমার চাকর? অফিস থেকে ফিরে একটার পর একটা খালি অর্ডার মেরেই যাচ্ছ…নির্লজ্জ, অসভ্য, ছোটলোক, স্বার্থপর…’
স্বামী কানে তুলা গুঁজতে গুঁজতে বলে, ‘এই যে…শুরু হয়ে গেল।’

****

আরও পড়ুন: টাহা তো মোর ধারে

স্বামী এক কথার মানুষ

স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে তুমুল ঝগড়া চলছে। এমনকি ঝগড়া গড়িয়েছে হাতাহাতি পর্যন্ত ! এক পর্যায়ে খাটের নিচে আশ্রয় নিল স্বামী বেচারা—
স্ত্রী: খাটের নিচে উঁকি দিয়ে বলল, বেরিয়ে এসো। বেরিয়ে এসো বলছি!
স্বামী: উত্তরে মিনমিন করে বলল, কেন কি করবে তুমি আমার? তোমাকে আগেই সাবধান করে দিচ্ছি!
স্ত্রী: কি বললে? কি করবে তুমি আমাকে?
স্বামী: তোমাকে ভয় পাই ভেবেছ? তোমাকে সাবধান করে দিচ্ছি, আমি কিন্তু যা বলি তাই করি।
স্ত্রী: কী বলতে চাও তুমি? কী করবে শুনি?
স্বামী: একবার যখন বলেছি আমি খাটের নিচ থেকে বের হব না। তো কিছুতেই বের হব না।

****

সংগৃহীত

আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন

আপনার ইমেইল আইডি প্রচার করা হবে না। কোন মন্তব্যে স্প্যাম লিংক/রেফারেল লিংক থাকলে সেটা প্রকাশ করা হবে না।

54 ÷ six =