কোরবানির মাংস বন্টনের নিয়ম

কোরবানি দেয়ার পর মাংস বন্টন করা খুব গুরুত্বপূর্ণ কাজ। কোরবানির মাংসের ভাগ সঠিক ভাবে বন্টন না করলে কিন্তু কুরবানি কবুলের শর্ত পূরণ হবে না। তাই কোরবানির মাংস বন্টনের নিয়ম আপনার জানা দরকার। মাংস ভাগের নিয়ম মেনে ভাগ করে বিলিয়ে দিতে হবে। চলুন জেনে নিই কিভাবে বন্টন করবেন পশু কোরবানির মাংস।

আরও পড়ুন: নামাজ পড়ার নিয়ম

কুরবানির মাংস বন্টন

৩ ভাগে ভাগ

কোরবানির মাংস বানানোর পর সব মাংস সমান ভাবে ৩ ভাগে ভাগ করতে হবে। পরিমাপের জন্য প্রয়োজনে দাড়িপাল্লা ব্যবহার করতে পারেন।

পশু কুরবানির কারনে অন্তর শুদ্ধ হবে। এটাই কোরবানির মূল প্রেরণা। বর্তমান সময়ে অনেকে গোশত বানানোর পর সেখান থেকে প্রতিবেশী এবং ফকীর মিসকীনদের অল্প কিছু দিয়ে বাকি গোশত নিজেদের মধ্যে ভাগ করে নেয় অথবা সকল মাংস সংরক্ষণ করে থাকেন। এটি করলে অন্তর শুদ্ধ হবে না। এর মাধ্যমে কুরবানির দাতার কৃপণতা প্রকাশ পায়। এটা করা মোটেও উচিত নয়।

গরিব দুঃখী ও আত্মীয়স্বজন

মাংস সমান ৩ ভাগ করার পর ১ ভাগ গরিব দুঃখীকে, ১ ভাগ আত্মীয় স্বজনকে এবং বাকি ১ ভাগ নিজে খাওয়ার জন্য রাখতে হয়। নিজের রাখা ভাগ থেকেও ইচ্ছা করলে আত্নীয় ও গরিব দূঃখী প্রতিবেশিদের দিতে পারবেন। তবে অন্য দুই ভাগ নিকট আত্মীয় ও গরীর মিসকিনদের হক, এটা ঠিকমত বিলিয়ে দিতে হবে।

চামড়া

কোরবানির গরুর আর একটি অংশ হল চামড়া বা চামড়ার টাকা। এটাতে ও গরীর মিসকিনদের হক রয়েছে।

মনে রাখবেন পশু কোরবানির মাংস সবসময় নিকটতম আত্নীয় এবং দূরের গরিব-দূঃখী অপেক্ষা আশপাশের গরিব দূঃখী প্রতিবেশিদের দেয়া উত্তম।

আরও পড়ুন

মন্তব্য করুন

আপনার ইমেইল আইডি প্রচার করা হবে না। কোন মন্তব্যে স্প্যাম লিংক/রেফারেল লিংক থাকলে সেটা প্রকাশ করা হবে না।