ঘুষ দিয়ে চাকরি নেওয়া কি জায়েজ

ঘুষ দিয়ে চাকরি নেওয়া কি জায়েজ ? ঘুষ দিয়ে চাকরি নেওয়া কি হারাম ? ঘুষ দিয়ে চাকরি নেওয়া যাবে কি ? ঘুষ দিয়ে চাকরি নেওয়া ইসলাম কি বলে এই প্রশ্নগুলির উত্তর নিচে দেয়া হল।

ঘুষ দিয়ে চাকরি নেওয়া কি জায়েজ বা ঘুষ দিয়ে চাকরি নেওয়া ইসলাম কি বলে

কেউ যদি কারো কোনো হক (অধিকার) নষ্ট করে, ক্ষতি করে বা অধিকারভুক্ত কোনো কিছু ছিনিয়ে নেয় এবং ঘুষ ছাড়া সেই হক ফিরিয়ে দিতে অথবা ক্ষতি করা থেকে বিরত থাকতে অস্বীকার করে, তাহলে ওই একান্ত অপারগ মাজলুম ব্যক্তির জন্য নিজের অধিকার রক্ষার্থে জালিমকে টাকা বা সম্পদ দেওয়া বৈধ। তবে ওই জালিমের জন্য তা গ্রহণ করা হারাম হবে।

চাকরি পাওয়ার আগেই সে চাকরির নির্ধারিত পদ, বেতন ইত্যাদির ওপরে চাকরিপ্রার্থীর হক বা অধিকার সাব্যস্ত হয়না বরং চাকরির জন্য নির্বাচিত হওয়ার পরে, চাকরি পাওয়ার পরে সেগুলো তার অধিকারভুক্ত হয়।

আরও পড়ুন : পণ্য ক্রয় করে ক্যাশব্যাক গ্রহণ করা কি জায়েজ?

তাই সরকারি বা বেসরকারি কোনো ধরণের চাকরি পাওয়ার আশায়, কর্মকর্তাদের কনভিন্স করার জন্য ঘুষ দেওয়া বৈধ হবে না।

তবে হক সাব্যস্ত হওয়ার পরে কোনো কর্মকর্তা যদি ঘুস না দিলে চাকরি বাতিল করে দেওয়ার হুমকি দেয় এবং হুমকিদাতা তা করার ক্ষমতা রাখে তাহলে তাকে তার চাওয়া সম্পদ প্রদানের মাধ্যমে নিবৃত্ত করা বৈধ। তবে মুমিন মুসলমানদের জন্য এই অনুমতির বিষয়টা একান্ত অপারগ পরিস্থিতিতে পালন করা উচিত।

অর্থাৎ মাজলুম ব্যক্তি যদি বৈধ কোনো পন্থায় নিজের হক উদ্ধার করার সক্ষমতা রাখে তাহলে সে তাই করবে। আর যদি বৈধ পদ্ধতিতে উদ্ধার করার সক্ষমতা না থাকে তাহলে অর্থ প্রদানের মাধ্যমেও অধিকার রক্ষা করতে পারে।

তথ্যসূত্র: রদ্দুল মুহতার, খণ্ড-৯, পৃষ্ঠা-৬০৭, ফাতহুল ক্বাদীর,খণ্ড-৭,পৃষ্ঠা-২৫৫, বাহরুর রায়েক,খণ্ড-৬,পৃষ্ঠা-২৬২

আরও পড়ুন : রক্ত বিক্রি করা কি জায়েজ

আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন

আপনার ইমেইল আইডি প্রচার করা হবে না। কোন মন্তব্যে স্প্যাম লিংক/রেফারেল লিংক থাকলে সেটা প্রকাশ করা হবে না।

two ÷ = one