টবে ক্যাপসিকাম চাষ পদ্ধতি

পুষ্টিগুণে ভরা সবজি ক্যাপসিকাম অনেকেই বাসায়, বারান্দায় বা ছাদে চাষ করতে চান। আজ টবে ক্যাপসিকাম চাষ পদ্ধতি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হল। মিষ্টি মরিচ বা ক্যাপসিকাম চাষ পদ্ধতি জেনে বারান্দা বা ছাদে টবে চাষ করতে পারেন এই সবজি।

আরও পড়ুন: খাঁটি মধু পরীক্ষা করার উপায়

টব বাছাই: ক্যাপসিকাম চাষের জন্য এমন টব বেছে নিন, যে টবের নিচে বেশ কয়েকটি ছিদ্র আছে। এতে বাড়তি পানি জমে থাকবে না মাটিতে। টবের বদলে জিও ব্যাগ বা গ্রো ব্যাগেও লাগাতে পারেন গাছ। অন্তত ১০-১২ ইঞ্চি গভীর টব বাছাই করতে হবে।

বীজ অথবা চারা: চারা রোপণ করতে চাইলে মোটামুটি এক মাস বয়সী চারা রোপণ করুন। বীজ থেকে চারা তৈরি করতে চাইলে সিডিং ট্রে বা ছোট পাত্রে মাটি দিয়ে ২-৩ সেন্টি মিটার গভীরে বীজ পুতে দিন। ৩ সপ্তাহের মধ্যেই জার্মিনেট হয়ে যাবে বীজ। দুটো পাতা হলেই সেটি টবে রোপন করে দিতে পারবেন।

সার এবং মাটি: এক-তৃতীয়াংশ জৈব সার মিশিয়ে মাটি প্রস্তুত করতে পারলে ভালো। এছাড়া কোকো পিট, নিমের কেকও মেশাতে পারেন। টবে রোপন করার এক মাস পর ১ চা চামচ ইউরিয়া সার দিন।

টব কোথায় রাখবেন: আলো, বাতাস, হালকা রোদ আসে এমন স্থান উপযুক্ত ক্যাপসিকাম চাষের জন্য। প্রতিদিন অন্তত ৬ ঘন্টা সূর্যের আলোতে রাখতে হবে গাছ। চারা লাগানোর তিন মাসের মধ্যেই ফল দিতে শুরু করবে গাছ।

টিপস:

  • শক্ত খুঁটির ব্যবস্থা করতে হবে যেন গাছ হেলে না পরে।
  • পানি এমনভাবে দিতে হবে যেন মাটি পুরোপুরি শুকিয়ে না যায় আবার পানি জমে না থাকে। গাছের গোড়া শুকনো পাতা দিয়ে ঢেকে দিতে পারেন।
  • গাছের পাতা কুঁকড়ে যাওয়া রোগ হলে সাবান পানি স্প্রে করতে পারেন।গ

আরও পড়ুন: মশা তাড়ানোর গাছ

আপনিও লিখতে পারেন প্রিয়তা অনলাইন লাইফস্টাইল ম্যাগাজিনে। লেখা পাঠাতে পারেন আমাদের info@priyota.xyz মেইলে অথবা মেসেজ করতে পারেন আমাদের ফেসবুক পেজে
আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন

আপনার ইমেইল আইডি প্রচার করা হবে না। কোন মন্তব্যে স্প্যাম লিংক/রেফারেল লিংক থাকলে সেটা প্রকাশ করা হবে না।

twenty eight − = nineteen